Site icon কালাক্ষর

শেষ হল মিডেল এজ ফ্যান্টিসী নাটকের শুটিং

সম্প্রতি শেষ হল সোলায়মান জুয়েলের রচনা ও পরিচালনায় এক ঘন্টার টিভি ফিকশন মিডেল এজ ফ্যান্টাসী এর কাজ । মূলত ৩৫ বছরের দুই জন বিবাহিত মানুষের গল্প নিয়েই রচিত হয়েছে এই নাটকের প্লট। যার প্রধান দুইটি চরিত্রের নাম অর্পা ও খালেদ। অর্পা খুব ভালবেসে বাবা মায়ের অমতে আট বছর আগে রাজুকে বিয়ে করে ছিল – বিয়ের প্রথম দিকে তাদের সংসার জীবন খুব ভাল কাটলেও আট বছর পর দেখা যায় রাজু আর তাকে আগের মত ভাল বাসে না- ব্যাবসা আর অফিস নিয়ে এতটা ব্যাস্ত থাকে যে তাদের এনুভার্সারী এর দিনেও অর্পা সময় না দিয়ে বাইরে কাটায় – এ দিকে অর্পা ভেবেছিল অন্য দিন সে ভাবে সময় না দিলেও এনুভার্সারীর দিনে অন্তত রাজুকে কাছে পাবে – কিন্তু রাজু যখন আসে না তখন সে খুব মন খারাপ করে বসে থাকে – ঠিক তখন ই তার ফোনে একটা অপরিচিত নাম্বার থেকে ফোনে তার এনুভার্সারী এর উইশ জানানো হয় – অর্পা অপরিচিত লোক টির পরিচয় জানতে চাইলে জানতে পারে যে সে হল খালেদ, রাজুর ফ্রেন্ড, ছাত্র জীবনে রাজু আর খালেদ রুম মেট ছিল ।

এক সাথে তারা খুব আড্ডা দিতো। রাজু অর্পার সাথে ডেট করতে রাজুর হেল্প চাইতো। পালিয়ে বিয়ে করার সময় খালেদ তাদের বিয়ের সাক্ষি হয়েছিল। কিন্তু বিয়ের পরে বিসিএস দিয়ে ডেপুটি জেলার হয়ে যায়- তার পর আর যোগাযোগ নেই। খালেদ জানায় – সে তাদের এনুভার্সারীতে উইশ করবে বলে ঢাকার রুটিন ওয়ার্ক এর মিটিং টা ইচ্ছে করেই তাদের এনুভার্সারীর দিনে রেখেছিল। কিন্তু এনুভার্সারীর দিনে অর্পার সাথে রাজু নেই জেনে খালেদ খুব মন ক্ষুণ্ণ হয়। খালেদের পরিচয় জানার পর অর্পা তাকে তাদের বাসায় আস্তে বলে- খালেদ আসে- এত বছর পর খালেদ কে পেয়ে অর্পার খুব মন ভাল হয়। কিন্ত খালেদ? অর্পার একাকীত্বের সুযোগ নিয়ে খালেদ তখন অর্পা কে নিয়ে একটা বাজে ফন্দি আটতে থাকে –

শেষ পর্যন্ত কি হয়? খালেদ কি অর্পাকে তার জালে আটকাতে পারে? নাকি অর্পা তাকে সে সুযোগ দ্যায় না? নাকি অন্য কিছূ? নাটক টির নাম অভিনয় করেছেন মৌসুমি হামিদ ও রোকন –

Exit mobile version